মঙ্গলবার, ০৩ আগস্ট ২০২১ ১৯শে শ্রাবণ ১৪২৮
 
করোনায় ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ মৃত্যু ১৪৩, শনাক্ত ৮৩০১
প্রকাশ: ০৫:৩০ pm ০১-০৭-২০২১ হালনাগাদ: ০৮:২৪ pm ০১-০৭-২০২১
 
 
 


দেশে গত ২৪ ঘণ্টার ব্যবধানে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ১৪৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। যা একদিনের মৃত্যুর সংখ্যায় সর্বোচ্চ। এ সময়ে নতুন করে করোনা আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন ৮ হাজার ৩০১ জন। এ সংখ্যা এখন পর্যন্ত দেশের তৃতীয় সর্বোচ্চ আক্রান্তের রেকর্ড।

এ নিয়ে মোট মৃত্যু হয়েছে ১৪ হাজার ৬৪৬ জনের। নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন ৮ হাজার ৩০১ জন। সবমিলিয়ে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৯ লাখ ২১ হাজার ৫৫৯ জনে।

বৃহস্পতিবার (১ জুলাই) বিকেলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. নাছিমা সুলতানা স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

এতে বলা হয়, ঢাকা সিটিসহ দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে ও বাড়িতে উপসর্গবিহীন রোগীসহ গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন ৪ হাজার ৬৬৩ জন। এ পর্যন্ত মোট সুস্থ হয়েছেন ৮ লাখ ২০ হাজার ৯১৩ জন।

সারাদেশে সরকারি ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ৫৬৬ টি ল্যাবে নমুনা সংগ্রহ ও পরীক্ষা হয়েছে। এর মধ্যে আরটি-পিসিআর ল্যাব ১২৮ টি, জিন এক্সপার্ট ৪৭টি, র‌্যাপিড অ্যান্টিজেন ৩৯১ টি। এসব ল্যাবে ২৪ ঘণ্টায় নমুনা সংগ্রহ হয়েছে ৩২  হাজার ৯২৪টি। মোট নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ৩২ হাজার ৫৫ টি। এ পর্যন্ত নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ৬৬ লাখ ৪০ হাজার ৯৮২টি।

গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা পরীক্ষায় শনাক্তের হার ২৫ দশমিক ৯০ শতাংশ। এ পর্যন্ত নমুনা পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৮৮ শতাংশ এবং শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৮৯ দশমিক ৮ এবং শনাক্ত বিবেচনায় মৃত্যুর হার ১ দশমিক ৫৯ শতাংশ।

২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়া ১৪৩ জনের মধ্যে পুরুষ ৯০ জন ও ৫৩ জন নারী। তাদের মধ্যে ঢাকা বিভাগে ৩৫ জন, চট্টগ্রাম বিভাগে ১৫ জন, রাজশাহী বিভাগে ১৯ জন, খুলনা বিভাগে ৪৬ জন, বরিশালে আটজন, সিলেট বিভাগের সাতজন, রংপুর বিভাগে দশজন ও ময়মনসিংহে তিনজন রয়েছেন। এর মধ্যে সরকারি হাসপাতালে ১০৯ জন, বেসরকারি হাসপাতালে ২৩ জন, বাড়িতে ১১ জন মারা গেছেন।

মৃত ব্যক্তিদের বয়স বিশ্লেষণে দেখা যায়, ৬০ বছরে ঊর্ধ্বে ৭০ জন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে ৪২ জন, ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে ১৮ জন, ৩১ থেকে ৪০ বছরের নিচে ১১ জন, ১১ থেকে ২০ বছরের মধ্যে একজন, এবং শূন্য থেকে ১০ বছরের মধ্যে একজন রয়েছেন।

গত ২৪ ঘণ্টায় আইসোলেশনে এসেছেন দুই হাজার ৮৬৯ জন ও আইসোলেশন থেকে ছাড় পেয়েছেন এক হাজার ৪০৫ জন। এ পর্যন্ত আইসোলেশনে এসেছেন এক লাখ ৮৪ হাজার ১৬১ জন। আইসোলেশন থেকে ছাড়পত্র নিয়েছেন ১ লাখ ৩৬ হাজার ৯৬৯ জন। বর্তমানে আইসোলেশনে আছেন ৪৭ হাজার ১৯২ জন।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্যমতে, ২০২০ সালের ৮ মার্চ দেশে করোনা ভাইরাসের প্রথম রোগী শনাক্ত হয়। এর ১০ দিন পর ১৮ মার্চ করোনায় আক্রান্ত হয়ে প্রথম একজনের মৃত্যু হয়। এরপর ধীরে ধীরে আক্রান্তের হার বাড়তে থাকে।

 
 

আরও খবর

 
 
 
 
 
 
 
 
©newsofbd24.com