সোমবার, ০২ আগস্ট ২০২১ ১৮ই শ্রাবণ ১৪২৮
 
এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষা যেভাবে হবে
প্রকাশ: ০২:০০ pm ১৫-০৭-২০২১ হালনাগাদ: ০২:৪৬ pm ১৫-০৭-২০২১
 
 
 


মহামারি করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এলে চলতি বছরের নভেম্বরের দ্বিতীয় সপ্তাহে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। আর ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহে এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

করোনাকালীন দশম শ্রেণির এসএসসি এবং দ্বাদশ শ্রেণির এইচএসসি পরীক্ষা বা মূল্যায়নের দিক নির্দেশনা দিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি।   
 
এসএসসি এবং এইচএসসি পরীক্ষার বিষয়ে বৃহস্পতিবার (১৫ জুলাই) সকাল ১১টায় এক ভার্চ্যুয়াল সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী জানিয়েছেন, নভেম্বরে এসএসসি এবং ডিসেম্বরে এইচএসসি পরীক্ষা হতে পারে।

 
শিক্ষামন্ত্রী জানান, কোভিড-১৯ পরিস্থিতি অনুকূল হলে সীমিত পরিসরে স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে সংক্ষিপ্ত সিলেবাসের আলোকে, গ্রুপ ভিত্তিক শুধুমাত্র তিনটি নৈর্বাচনিক বিষয়ের ওপর পরীক্ষার সময় ও নম্বর হ্রাস করে নভেম্বরের দ্বিতীয় সপ্তাহে এসএসসি এবং ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহে এইচএসসি পরীক্ষা নেওয়া হবে। যদি পরীক্ষা নেওয়া সম্ভব না হয়, সে ক্ষেত্রে পূর্ববর্তী জেএসসি-জেডিসি-এসএসসি বা সমমানের পরীক্ষার নম্বরের ভিত্তিতে এবং অ্যাসাইনমেন্টের ভিত্তিতে অথবা শুধু সাবজেক্ট ম্যাপিংয়ের মাধ্যমে এসএসসি-এইচএসসির মূল্যায়ন করে ফলাফল প্রকাশ করা হবে।
 
অ্যাসাইনমেন্টের মূল্যায়ন কতটা সঠিক হচ্ছে, সেগুলো মূল্যায়ন করা হবে জানিয়ে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, আমরা সারাদেশ থেকে দ্বৈব চয়নের মাধ্যমে নমুনা গ্রহণ করে মূল্যায়ন করব। যদি কোথাও কোনো অভিযোগ থাকে বা মূল্যায়নের ক্ষেত্রে সঠিক না হয়, সেটি সঠিক করার ব্যবস্থা করব। আশা করি, শিক্ষককরা সঠিকভাবে মূল্যায়ন করবেন।
 
শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ঈদুল আজহার পর পর এইচএসসির ফরম পূরণ অনলাইনে শুরু হবে। পরীক্ষার ফি অনলাইনে দিতে পারবে। কোনো শিক্ষার্থীকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যেতে হবে না। অল্প বিষয়ে পরীক্ষা নেওয়া হবে, তাই ফিও কম নেওয়া হবে। এ বিষয়ে বোর্ড থেকে নির্দেশনা জারি করা হবে।
 
দীপু মনি বলেন, যদি নভেম্বর ও ডিসেম্বরে পরীক্ষা নিতে পারি, তাহলে নৈর্বাচনিক বিষয়ের ওপর পরীক্ষা নিয়ে মূল্যায়ন করা হবে। আর আবশ্যিক বিষয়ের মূল্যায়ন হবে সাবজেক্ট ম্যাপিংয়ের ওপর। তবে অ্যাসাইনমেন্টগুলো করা হবে পরীক্ষার প্রস্তুতির জন্য।
 
আর যদি পরীক্ষা নেওয়া সম্ভব না হয়, সে ক্ষেত্রে দু’টি অপশন থাকতে পারে। একটি- অ্যাসাইনমেন্টের ফল থেকে কিছু অংশ আর বাকি অংশ সাবজেক্ট ম্যাপিং থেকে, আরেকটি শুধুই সাবজেক্ট ম্যাপিং থেকে পরীক্ষার ফলাফল হতে পারে।   
 
তিনি বলেন, এসএসসিতে তিনটি নৈর্বাচনিক বিষয়ে ২৪টি এবং এইচএসসিতে প্রতিটি নৈর্বাচনিক বিষয়ে দু’টি করে মোট ছয়টি পত্রে ৩০টি অ্যাসাইনমেন্ট করতে হবে। অ্যাসাইনমেন্টের মাধ্যমে সিলেবাস কাভার করবে। আবশ্যিক বিষয়- এসএসসির ক্ষেত্রে বাংলা, ইংরেজি, গণিত, আইসিটি, ধর্ম এবং এইচএসসির ক্ষেত্রে আবশ্যিক বিষয় কিংবা চতুর্থ বিষয় (ঐচ্ছিক) অ্যাসাইনমেন্ট দেব না বা মূল্যায়ন করব না। আবশ্যিক বিষয়গুলো তারা পড়ে এসেছে। এসএসসি বা সমমান পরীক্ষায় সাবজেক্ট ম্যাপিংয়ের মাধ্যমে নম্বর দেওয়া সম্ভব। শুধু নৈর্বাচনিক বিষয়গুলোর মূল্যায়ন করব।
 
এইচএসসিতে বিজ্ঞান বিভাগের পদার্থ, রসায়ন, জীববিজ্ঞান বা গণিতের মূল্যায়ন করা দরকার জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, পরে তারা বিশ্ববিদ্যালয়ে এসব বিষয়ে পড়বে।
 
শিক্ষামন্ত্রী জানান, কারিগরিতে নবম ও দশম শ্রেণির পরীক্ষাগুলো পাবলিক পরীক্ষা। তাদের নবম এবং দশম শ্রেণির পরীক্ষাগুলো সেভাবে হবে।
 
অনিয়মিত পরীক্ষার্থীরা নিয়মিত পরীক্ষার্থীর মতো অংশগ্রহণ করবে। এক বা দুই বিষয়ের পরীক্ষার জন্য আবশ্যিক বিষয়ের পরীক্ষার ফলাফল সাবজেক্ট ম্যাপিংয়ের মাধ্যমে দেওয়া হবে। আর নৈর্বাচনিক বিষয়ের ক্ষেত্রে যদি অনিয়মিত পরীক্ষার্থী থেকে থাকে, তাহলে তারাও অন্যান্য সব পরীক্ষার্থীর মতো অংশ নেবে।  
 
মানোন্নয়ন পরীক্ষার্থীরা একই বিষয়ে নৈর্বাচনিক বিষয়ে পরীক্ষায় অংশ নিতে পারবে।
 
সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব মাহবুব হোসেনসহ কর্মকর্তারা সংযুক্ত ছিলেন।

 
 

আরও খবর

 
 
©newsofbd24.com